নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়, ইতিহাসের রাজনীতি ও বখতিয়ার খলজির বিহার অভিযান

সোশ্যাল মিডিয়ার বিপ্লবের অনেক ভাল দিকের সাথে অন্যতম খারাপ যে দিকটি আমাদের নজরে আসে সেটি হল মানুষের অন্তর্নিহিত ঘৃণা, বিদ্বেষ চর্চার বহিঃপ্রকাশ। আগে এগুলো ছিলনা এমন নয় তবে সেটা ব্যক্তির নিজের মধ্যে বা নিজেদের গোষ্ঠীর মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকত।কোন বই, সংবাদ বা প্রবন্ধ যখন সম্পাদকের হাত দিয়ে যেত সেগুলো ভালভাবে সম্পাদনা হওয়ার ফলে কমিউনিটির মনে আঘাত লাগতে পারে এমন বিষয়গুলো এডিট করা হত।কিন্তু ফেইসবুক,ব্লগের বদৌলতে আমরা দেখতে পাই নাম গোপন করে, নিক নামের আড়ালে, কোন ধরণের সম্পাদনা ছাড়াই প্রকাশিত প্রবন্ধে,মন্তব্যে, কবিতায়, মতামতে বিকৃত মনের সাম্প্রদায়িকতা চর্চা।‘সাহিত্য’ বা লেখালেখি হয়ে উঠেছে সাম্প্রদায়িকতা চর্চার অন্যতম হাতিয়ার।

একজন মানুষ কেন সাম্প্রদায়িক হয়? বা কেন ভিন্ন ধর্ম বিদ্বেষে ভোগে? বিষয়টা একই সাথে মনস্তাত্ত্বিক এবং রাজনৈতিক। একই মায়ের পেটের ভাইয়ে ভাইয়ে যখন ভিটা-মাটি নিয়ে দ্বন্দ্ব হয়,সেটাকে আমরা সাম্প্রদায়িকতা বলিনা,এটা অর্থের বা সম্পত্তির দ্বন্দ্ব। এই দ্বন্দ্বের প্রকারভেদ যেমনি হোক, এমনকি এক ভাই আরেক ভাইকে মেরে ফেললেও আমরা এটাকে সাম্প্রদায়িকতা বলতে পারিনা। সাম্প্রদায়িকতা শব্দের মূল শব্দ হচ্ছে সম্প্রদায়। এই শব্দের ব্যুৎপত্তিগত তাত্ত্বিক আলোচনায় না গিয়ে পাঠকের সুবিধায় জন্য বলি; মুসলিম, হিন্দু, বৌদ্ধ, খৃষ্টান ইত্যাদি প্রত্যেকটা ধর্মের আলোকে সম্প্রদায় গড়ে উঠেছে আমাদের দেশে। সলিমুল্লাহ খান যেমনটা বলেছেন, নিজের দেশে নিজের সম্প্রদায়ের অধিকার, দাবী-দাওয়া আদায়ের জন্য প্রচেষ্টা চালানো, আন্দোলন করার নাম সাম্প্রদায়িকতা নয়। বরং নিজেরটা চাইতে গিয়ে অন্য সম্প্রদায়কে বঞ্চিত করা বা তাঁদের অধিকার দিতে অস্বীকার করার নাম হচ্ছে সাম্প্রদায়িকতা। সাহিত্যের ক্ষেত্রেও সেটা সমভাবে প্রযোজ্য। ‘সাহিত্যে সাম্প্র্রদায়িকতা’ বলতে কি বুঝায় বলতে গিয়ে বিশিষ্ট ভাষাবিদ ডক্টর মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্‌ বলেন;

“সাহিত্যে সাম্প্র্রদায়িকতা বলতে আমি বুঝি সাহিত্যের ভিতর দিয়ে অন্য সম্প্রদায় বা ধর্ম বিশেষের বিরুদ্ধে প্রোপাগান্ডা চালানো, কোনও জাতির ঐতিহাসিক চরিত্রকে বা কোনও ধর্মাবলম্বীর সম্মানিত পুরুষদের হীন বা বিকৃত করা। দেশের সাম্প্র্রদায়িক বিবাদের মূলে এই সাম্প্র্রদায়িক সাহিত্য”(ডক্টর মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্‌,সাহিত্যে সাম্প্রদায়িকতা,আমাদের সমস্যা, ঢাকা, ১৯৪৯, পৃ ২৩-২৪)।

সাম্প্রদায়িকতার ঐতিহাসিক উৎস এবং কারণ খুঁজতে গিয়ে আমরা দেখতে পাই শহীদুল্লাহ্‌র সংজ্ঞায়িত সাম্প্রদায়িকতার চর্চা বহু পুরনো। ১৯শ শতকে এই চর্চা আমরা দেখতে পাই হিন্দু ধর্মাবলম্বী সাহিত্যিকদের লেখায়।ক্ষেত্র বিশেষে সেই চর্চা অনেকাংশে ভিন্ন ধর্ম বিদ্বেষে রূপান্তরিত হয়েছে (দেখুনঃ সাহিত্যের পাতায় মুসলিম বিরোধী সাম্প্রদায়িকতা)।এই চর্চার ধারাবাহিকতা আমরা আজও দেখতে পাই। সোশ্যাল মিডিয়ার বিপ্লব এই জঘন্য চর্চাকে পুনর্জাগরন করেছে।ঐতিহাসিকভাবে জারি থাকা দুটি প্রধান সভ্যতার দ্বন্দ্ব আমরা দেখতে পাই উনিশ শতকের সাহিত্যে।ঐতিহাসিক ‘নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়’ ধ্বংস নিয়ে প্রচলিত ইতিহাস এবং এর চর্চা এমনি একটি ঘটনা যাকে কেন্দ্র করে বয়ে চলেছে সাম্প্রদায়িক ঘৃণা ও বিদ্বেষের চর্চা। এই পোস্টে ‘নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়’ ধ্বংসের মূল ঘটনা জানার চেষ্টা করব।

নালন্দাকে নিয়ে আলোচনা চালানোর মূল লক্ষ্য হচ্ছে ভারতে মুসলিম শাসন কতটা ‘বর্বর’ ছিল সেটা প্রমাণ করা। বলা হয়ে থাকে-ইখতিয়ার উদ্দীন মুহাম্মদ বখতিয়ার খলজি কতটা অসভ্য হলে বিশ্ববিদ্যালয় ধ্বংসের মত এমন একটি কাজ করতে পারে, বই পুড়িয়ে দিতে পারে।একই সাথে এই বক্তব্য আরো প্রসারিত হয়ে বলার চেষ্টা করে যে-মুসলিম শাসনের অত্যাচার, নির্যাতন ও নিষ্পেষণের কারণে ভারতবর্ষ থেকে বৌদ্ধ ধর্মের আপাত বিলুপ্তি ঘটে।অথচ এই বক্তব্য কতটা মিথ্যা ও প্রতারণাপূর্ণ সেটা যেকোনো ক্রিটিকাল ইতিহাস পাঠকের কাছে ধরা পরতে বাধ্য।শত শত বছরের ব্রাহ্মণ্যবাদী অত্যাচারে অতিষ্ঠ বৌদ্ধদের তাঁদের উৎপত্তিস্থল থেকে হারিয়ে যাওয়ার ইতিহাস ঢাকতে এই মিথ্যাচার।[এই বিষয়ে সংক্ষেপে জানতে পড়ুন-ভারতবর্ষে বৌদ্ধ ধর্মের অবলুপ্তির কারণ]

নালন্দা নিয়ে প্রচলিত ধারণা

মুক্তমনার রাজেশ তালুকদার তাঁর এক প্রবন্ধে লিখেন, ”শত শত বছর ধরে অবদান রেখে আসা একটি সভ্য, উন্নত জাতি তৈরি ও জ্ঞান উৎপাদনকারী নিরীহ এই প্রতিষ্ঠানটি ১১৯৩ খ্রিষ্টাব্দে তুর্কি সেনাপতি ইখতিয়ার উদ্দিন মুহাম্মদ বখতিয়ার খলজী আক্রমণ করে ধ্বংস করে ফেলেন। তার আক্রমণের বর্বরতা এত ভয়াবহ আকারে ছিল এ সম্পর্কে পারস্য ইতিহাসবিদ মিনহাজ তাঁর “তাবাকাতে নাসিরি” গ্রন্থে লিখেছেন “হাজার হাজার বৌদ্ধ ভিক্ষুকে আগুনে পুড়িয়ে ও গলা কেটে হত্যা করে সেখানে ইসলাম প্রচারের চেষ্টা করেন খলজী” এরপর আগুন লাগিয়ে দেন লাইব্রেরীর ভবন গুলোতে। লাইব্রেরীতে বইয়ের পরিমান এত বেশী ছিল যে কয়েক মাস সময় লেগেছিল সেই মহা মূল্যবান বই গুলো পুড়ে ছাই ভস্ম হতে(জনশ্রুতি আছে ছয় মাস)” [রাজেশ তালুকদার, নালন্দার ধ্বংস বনাম ধর্মীয় বিজয়,মুক্তমনা ব্লগ,April ১৯, ২০১১, https://blog.mukto-mona.com/2011/04/19/15819/ ]

অবাক করা বিষয় হচ্ছে, এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে ‘মুক্তমনা’ রাজেশ লিখলেন অথচ তাঁর তথ্য সূত্র হিসেবে উল্লেখ করেছেন ইন্টারনেট! এই বিষয়ে কোন গবেষণা পড়ার বা জানার চেষ্টাই নেই?এভাবে প্রচলিত ধারণা দিয়ে কি মুক্তবুদ্ধি চর্চা করা যায়? এটা তো স্রেফ প্রচলিত ধারনার রিসাইকেলিং হয়।উপরন্তু, তিনি মিনহাজ এর ‘তাবাকাতে নাসিরি’ যে বর্ণনা দিয়েছেন সেটাও মিথ্যা।পরে আলোচনায় আমরা দেখব।

সদালাপে শামস নামে একজন অবশ্য একটু ভিন্ন বয়ান দিয়েছেন। তবে তিনিও ব্রাহ্মণ্যবাদী টুইস্ট পুরোপুরি ধরতে পারেন নি। তিনি দেখিয়েছেন, নালন্দা তিন বার ধ্বংসের সম্মুখীন হয়।

প্রথমবার স্কন্দগুপ্তের সময়ে (৪৫৫-৪৬৭ খৃষ্টাব্দে) মিহিরাকুলার নেতৃত্বে মধ্য এশিয়ার যুদ্ধবাজ হানদের দ্বারা। উল্লেখ্য মিহিরকুলার নেতৃত্ব হানরা ছিল প্রচণ্ড রকমের বৌদ্ধ-বিদ্বেষী। বৌদ্ধ ছাত্র ও ধর্মগুরুদের হত্যা করা হয় নির্মমভাবে। স্কন্দগুপ্ত ও তার পরবর্তী বংশধরেরা একে পুনর্গঠন করেন। প্রায় দেড় শতাব্দী পরে আবার ধ্বংসের মুখে পড়ে। আর তা হয় বাংলার শাসক শশাঙ্কের দ্বারা। শশাঙ্ক ছিলেন বাংলার অন্তর্গত গৌড়’র রাজা। তার রাজধানী ছিল আজকের মুর্শিদাবাদ। রাজা হর্ষবর্ধনের সাথে তার বিরোধ ও ধর্মবিশ্বাস এই ধ্বংসযজ্ঞে প্রভাব বিস্তার করে। রাজা হর্ষবধন প্রথমদিকে শৈব (শিবকে সর্বোচ্চ দেবতা মানা) ধর্মের অনুসারী হলেও বৌদ্ধ ধর্মের একজন পৃষ্ঠপোষকে পরিণত হন। কথিত আছে, তিনি সেই সময়ে ধীরে ধীরে গজিয়ে উঠা ব্রাহ্মণদের বিদ্রোহও নিষ্ঠুরভাবে দমন করেছিলেন।

অন্যদিকে রাজা শশাঙ্ক ছিলেন ব্রাহ্মণ্য ধর্মের একজন শক্তিশালী পৃষ্ঠপোষক ও এর একান্ত অনুরাগী। উল্লেখ্য রাজা শশাঙ্কের সাথে বুদ্ধের অনুরক্ত রাজা হর্ষবর্ধনের সবসময় শত্রুতা বিরাজমান ছিল এবং খুব বড় একটি যুদ্ধও হয়েছিল। রাজা শশাঙ্ক যখন মাগধায় প্রবেশ করেন তখন বৌদ্ধদের পবিত্র স্থানগুলোকে ধ্বংস করেন, খণ্ড-বিখণ্ড করেন বুদ্ধের ‘পদচিহ্ন’কে। বৌদ্ধ ধর্মের প্রতি তার বিদ্বেষ এত গভীরে যে তিনি বৌদ্ধদের ধর্মীয় স্থান ছাড়াও, বুদ্ধগয়াকে এমনভাবে ধ্বংস করেন যাতে এর আর কিছু অবশিষ্ট না থাকে । হর্ষবর্ধন পরে রাজা শশাঙ্কের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি অভিযান পরিচালনা করেন ও শেষপর্যন্ত বাংলার কিয়দংশ করায়ত্ত করেন। তিনি নালন্দাকে পুনর্গঠনে বিশেষভাবে ভূমিকা রাখেন।

তৃতীয়বার নালন্দা ধ্বংস হয় বখতিয়ার খলজির হাতে।তবে সেটা ভুল বুঝের কারণে হয়। বখতিয়ার খলজি নালন্দাকে সামরিক দুর্গ মনে করে আক্রমণ করে ফেলেন । [শামস, প্রাচীন ভারতীয় সভ্যতার প্রতীক নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের ধ্বংস: একটি নিরপেক্ষধর্মী বিশ্লেষণ,  জানুয়ারি ১৩, ২০১২ http://www.shodalap.org/shams/8918/ ]

আসলে শামস তাঁর আলোচনায় ভিন্ন তথ্য ও পারসপেক্টিভ নিয়ে আসলেও বখতিয়ার খলজির নালন্দা আক্রমণের ঘটনাটা ভালভাবে খুঁটিয়ে দেখেন নি। যদিও তিনি ইরানী ঐতিহাসিক মিনহাজের তাবাকত-ই-নাসিরি’র রেফারেন্স দিয়েছেন কিন্তু তিনিও মনে হয় মিনহাজের বর্ণনা টুইস্ট করা কোন সোর্স থেকে নিয়েছেন যেমনটা করেছেন ‘মুক্তমনা’ রাজেশ। তাহলে দেখা যাচ্ছে নালন্দা’র অন্যতম বর্ণনাকারী হচ্ছেন একজন মুসলিম, ইরানি ঐতিহাসিক মিনহাজ আদ দিন সিরাজী।ব্রাহ্মণ্যবাদী ঐতিহাসিকগন এই বিষয়টাও বিবেচনায় আনেনি যে একজন মুসলিম হয়েও মিনহাজ বখতিয়ার খলজির অভিযানের ঘটনা কোন রকম লুকোচুরি না করেই সত্য ও বস্তুনিষ্টভাবে বর্ণনা করেছেন।অথচ তারা তাঁর এই বর্ণনাকেও বিকৃত করেছে মুসলিমদেরকেই দোষী সাব্যস্ত করতে!

নালন্দা ধ্বংসের আসল ঘটনা

ruins-of-nalanda-bihar
ধ্বংসপ্রাপ্ত নালন্দা

রাজা শশাঙ্ক (সম্ভাব্য রাজত্ব ৫৯০-৬২৫ খ্রি.) এবং হর্ষবর্ধনের  (৫৯০–৬৫৭) মধ্যকার দ্বন্দ্ব এতটাই তিক্ত হয়ে উঠে যেটা শামসের আলোচনায় কিছুটা এসেছে যে, ব্রাহ্মণরা তাকে হত্যার ষড়যন্ত্র করে। আসলে তাঁদের মধ্যকার ঐ দ্বন্দ্ব নির্দেশ করে ঐ সময়কার বৌদ্ধ ও ব্রাহ্মণদের মধ্যে রাজনৈতিক ও ক্ষমতার লড়াই এবং এর ফলাফল হচ্ছে উত্তর ভারত থেকে বৌদ্ধদের গন বিতারণ ও গণহত্যা।যাই হোক, হর্ষবর্ধন একবার এই হত্যা প্রচেষ্টা থেকে বেঁচে গেলেও পরবর্তীতে এক ব্রাহ্মণ গুপ্ত ঘাতকের হাতে তাঁর মৃত্যু হয়।এরপর তীরহুতের রাজা অর্জুন (চীনা সোর্সে তাকে A-lo-na-shun নামেও দেখা যায়)সিংহাসন দখল করে যে কিনা হর্ষবর্ধনের সাথে নিরাপত্তা চুক্তিতে ছিল বা বলা হয়ে থাকে সে তাঁর প্রতিরক্ষার দায়িত্বে ছিল।হেন্স বাকের তাকে চিত্রিত করেছেন হর্ষবর্ধনের অধীনস্থ হিসেবে(Hans Bakker, The World of the Skandapurāṇa, BRILL, 2014, P,128)।

অর্জুন সিংহাসনে আরোহণ করার পর একদল ব্রাহ্মণ দুর্বিত্তের নেতৃত্বে নালন্দায় আক্রমণ হয় এবং সেটা আগুনে পুড়িয়ে দেয়া হয়।(D.D. Kosambi, The Culture and Civilisation of Ancient India in Historical Outline, Lahore 1991:180)। এটা হচ্ছে নালন্দা ধ্বংসের মূল ঘটনা।তবে এটি সে সময় পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে যায়নি।অর্জুন কর্তৃক চীনা প্রতিনিধি ওয়াং হিউয়েন টিসি (Wang Hiuen Tsee)কে আক্রমণ করা হলে তিনি নেপালে পালিয়ে যান (S.N. Sen, Ancient Indian History and Civilization, New Age International, 1999:261)।এরপর নেপালের রাজা অর্জুনকে আক্রমণ করে গ্রেফতার করে চীনে পাঠিয়ে দেন। পরবর্তীতে নেপালের রাজার সহযোগিতায় নালন্দা  মেরামত করা হয় এবং প্রায় ১৩০০ সাল পর্যন্ত চালু থাকে।

তাহলে ১৩০০ সালের পর কিভাবে চালু থাকা নালন্দা ধ্বংস হয়ে গেল? এর কনক্রিট উত্তর দিয়েছেন দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান প্রফেসর DN JHA। তিনি লিখেন যে; ব্রাহ্মন্যবাদ ও বৌদ্ধদের মধ্যকার চলতে থাকা আঘাত-প্রতিঘাতে নালন্দা ধ্বংস হয়।এই ক্ষেত্রে প্রফেসর অনেকগুলো তিব্বতি রেফারেন্সও দিয়েছেন।আগ্রহী পাঠকেরা চাইলে লেখাটি পড়ে নিতে পারেন (আরো দেখুন বিস্তারিত, কিভাবে ইতিহাস বিকৃত করা হয়েছে নালন্দাকে নিয়ে How History Was Unmade At Nalanda, D N Jha, JULY 9, 2014, kafila.org)

বখতিয়ার খলজির অভিযান 

স্বাভাবিকভাবে এখানে প্রশ্ন আসতে পারে, তাহলে বখতিয়ার খলজি যে অভিযান চালান সেটা কোথায় এবং এর ফলাফল কি? ১১৯৯ সালে বখতিয়ার খলজি দক্ষিণ বিহার অভিযান চালান এবং রাজা গোবিন্দপাল দেব কে পরাজিত করেন।(M. Habib in I. Habib, Medieval India 1, Delhi, 1992)। একই সময়ে বখতিয়ার খলজি উদন্তপুরে অভিযান চালান যেটি ছিল একটি বৌদ্ধ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। ইরানি ঐতিহাসিক মিনহাজ আদ দিন সিরাজী ঐ ঘটনার প্রায় ৪১ বছর পর বিহারে গিয়ে লোক মুখে শুনে সেই ঘটনা বর্ণনা করেন তাঁর বিখ্যাত বই ‘তাবাকত-ই-নাসিরি’ তে।তার বর্ণনা মতে বুঝা যায় যে,বখতিয়ার খলজি সেই অপারেশনে ভুল করে উদন্তপুরের ঐ প্রতিষ্ঠানে আক্রমণ করেন  (কেননা বিহারটি বাহির থেকে দেখতে সামরিক দুর্গের মত দেখাচ্ছিল।পরে তিনি বুঝতে পারেন আসলে এটি ছিল একটি কলেজ] এবং প্রতিষ্ঠানের অধিবাসী সবাই (সবাই ছিল মাথা কামানো ব্রাহ্মণ) সেসময় নিহত হয়।[Tabaqat-i-Nasiri in Elliot and Dowson 1861 ii:306 ]।

রাজেশ এবং শামস তাঁদের লেখায় মিনহাজকে কোট করে লিখলেন প্রতিষ্ঠানের অধিবাসী সবাই ছিল বৌদ্ধ! তাহলে ঘটনাটা দুই রকম হয়ে গেলনা? একই সোর্স, একই বই, একই লেখক অথচ ভিন্ন বয়ান? এখানেই লুকিয়ে আছে মূল সমস্যা।তাহলে দেখা দরকার মিনহাজের আসল বক্তব্যটা। দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান, প্রফেসর DN JHA মিনহাজের পুরো বক্তব্যটি তুলে ধরেছেন;

“He [ Bakhtiyar Khalji] used to carry his depredations into those parts and that country until he organized an attack upon the fortified city of Bihar. Trustworthy persons have related on this wise, that he advanced to the gateway of  the fortress of Bihar with two hundred horsemen in defensive armour, and suddenly attacked the place. There were two brothers of Farghanah, men of learning,  one Nizamu-ud-Din, the other Samsam-ud-Din (by name) in the service of Muhammad-i-Bakht-yar ; and the author of this book [ Minhaj] met with at Lakhnawati in the year 641 H., and this account is from him.

These two wise brothers were soldiers among that band of holy warriors when they reached the gateway of the fortress and began the attack, at which time Muhammad-i-Bakhtiyar, by the force of his intrepidity, threw himself into the postern of the gateway of the place, and they captured the fortress and acquired great booty. The greater number of inhabitants of that place were Brahmans, and the whole of those Brahmans had their heads shaven; and they were all slain. There were a great number of books there; and, when all these books came under the  observation of the Musalmans, they summoned a  number of Hindus  that they might give them information respecting the import of those books; but the whole of the Hindus were killed. On becoming acquainted (with the contents of the books), it was found that the whole of that fortress and  city was a college, and in the Hindui tongue, they call a college Bihar” (Tabaqat-i-Nasiri, English tr. H G Raverty, pp.551-52) [How History Was Unmade At Nalanda, D N Jha, JULY 9, 2014, kafila.org ]।  প্রফেসর DN JHA এরপর মন্তব্য করেন;

The above account mentions the fortress of Bihar as the target of Bakhtiyar’s attack. The fortified monastery which Bakhtiyar  captured  was, “known as Audand-Bihar or Odandapura-vihara” (Odantapuri in Biharsharif then known simply as Bihar). This is the view of many historians but, most importantly, of Jadunath Sarkar, the high priest of communal historiography in India (History of Begal, vol. 2,  pp.3-4). Minhaj does not refer to Nalanda at all: he  merely speaks of the ransacking of the “fortress of Bihar” (hisar-i-Bihar).

বস্তুত বখতিয়ার নালন্দাতে যাননি।তিনি অভিযান চালিয়েছেন উদন্তপুরে,কেননা এটাই ছিল সেসময়ের রাজধানী।নালন্দার পরিচিতি ছিল কেবল বিশ্ববিদ্যালয়ের কারনে,এরকম মহাবিহার (বিশ্ববিদ্যালয়) তখন আরও ছিল।

বখতিয়ার খলজি সহ মুসলিম শাসকদেরকে যে ঢালাওভাবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ধর্মীয় স্থাপনা ধ্বংসের অপবাদ দেয়া হয় তাঁর কারণ উপরে উল্লেখ করেছি। সেগুলো যে ঢাহা মিথ্যা তাঁর আরো কয়েকটি প্রমাণ দিচ্ছি। তিব্বতি স্কলার-মঙক ধর্মস্বামী ১২৩৪ থেকে ১২৩৬ সালে বিক্রমশীলা মহাবিহার (ভারতে ‘বিহার’ মানে ‘কলেজ’)এর প্রধান হিসেবে দায়িত্বপালন করেন,যেটি কিনা বখতিয়ার খলজি তাঁর উদন্তপুর অভিযানের সময় ধ্বংস করার কথা (যেমনটা ব্রাহ্মণ পণ্ডিতগন অভিযোগ করেন)।অথচ ধর্মস্বামী ব্যক্তিগতভাবে সে সময়কার অবস্থান থেকে দেখতে পান যে প্রায় ৮০ টি বৌদ্ধ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তখনো যথাযথভাবে নালন্দা ও তাঁর আশেপাশে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে [G. Roerick, Biography of Dharmasvamin (Chag lo-tsa-ba Chos-rje-dpal) a Tibetan Monk Pilgrim, Patna, 1959:64-65]।

সাম্প্রতিক গবেষণায় এমনই চিত্র তুলে ধরেছেন Altshuler University এর রিলিজিয়াস স্টাডিসের প্রফেসর Johan Elverskog তাঁর Buddhism and Islam on the Silk Road বইয়ে বৌদ্ধদের সাথে মুসলমানদের সুসম্পর্কের কথা তুলে ধরে বলেন; “not only did local Buddhist rulers make deals with the new Muslim overlords and thus stay in power, but Nalanda also continued as a functioning institution of buddhist education well into the thirteenth century. One Indian master, for example, was trained and ordained at Nalanda before he travelled to the court of Khubilai Khan. We also know that Chinease monks continued to travel to India and obtain Buddhist texts in the late fourteenth century” (Johan Elverskog, Buddhism and Islam on the Silk Road, Philadelphia: University of Pennsylvania Press, 2010. pp. 1-3). তাঁর মানে হচ্ছে, বখতিয়ার খলজির অভিজানের প্রায় ১০০ বছর পরও নালন্দা সচল ছিল।

এখানে আরেকটি বিষয় উল্লেখ করতে হয়, বখতিয়ার খলজি কেন ভুলে উদন্তপুর বিহার আক্রমণ করলেন।তিব্বতি এক সন্ন্যাসী (ভিক্ষু) পণ্ডিত কুলাচার্য জ্ঞানানশ্রী (Kulacharya Yanansri) তার ‘ভাদ্র কল্পদ্রুম’ (Bhadra Kalpadrum) –এ বলেন যে সে সময় বৌদ্ধদের নিজেদের মধ্যেও ভিন্ন মত, ধারা বিরাজ করছিল। সেদিন বৌদ্ধভিক্ষু পণ্ডিতগণের মধ্যে কলহ বিবাদ এতই উত্তেজনার শিখরে ওঠে যে তাদের এক পক্ষ [ব্রাহ্মণ রাজা লক্ষণ সেনের রাজত্বকালে] তুর্কীর মুসলিম আক্রমণকারীদেরকে তাদের ওখানে আক্রমণ চালাতে  প্রতিনিধি পাঠায়লক্ষণ সেনের রাজত্ব কালে এই প্রেরিত প্রতিনিধিত্ব লক্ষণ সেনের ইচ্ছার প্রকাশ ঘটায়তিনি চেয়েছিলেন, বুদ্ধদের ক্ষমতা সেখানে ভেঙ্গে পড়ুকএই উদ্দেশ্যে তিনি ভিক্ষুদের মধ্যে বিবাদের সূত্র লালন করেন দুই বিবাদীর এক পক্ষকে বিদেশিদের সাহায্য নিতে উৎসাহ দান করেনএতে তিনি তাঁদের দুর্বল করে ফায়দা নিতে চেয়েছিলেন ।ফলাফল যেটা হল, বখতিয়ার খলজিকে যেভাবে গাইড করা হয়েছে সম্ভবত সেভাবেই তিনি অভিযান পরিচালনা করেন। বিহার আক্রমণ প্রতিহত করতে  যারাই বাঁধা দিয়েছে সৈন্যরা তাদেরকে হত্যা করেছেমিনহাজের বিবরণে স্পষ্ট হয় বখতিয়ার জানতেন না যে উদন্তপুর ছিল বুদ্ধদের একটি শিক্ষাপীঠকিন্তু সেখানে সারিবদ্ধ পুস্তক দেখে অনুসন্ধান করে জানেন যে সেটি কোন সৈন্যদূর্গ ছিলনা (Journal of Varendra Research Society, 1940  cited in A. Mu’min Chowdhury, The Rise and Fall of Buddhism in South Asia, London: London Institute of South Asia, 2008)।এই বক্তব্য প্রায় সবগুলো সোর্সই নিশ্চিত করছে।

তাহলে কি মুসলিম সৈন্যবাহিনীকে ইচ্ছাকৃত ভাবে ভুল পথে চালিয়ে সেখানে নেয়া হয়?  এটা ব্রাহ্মণ্যবাদের অতিপুরাতন ও বহুল ব্যবহৃত কূটনীতি ও কৌশল যে,তারা স্থানীয় শক্তির মধ্যকার আভ্যন্তরীণ বিরোধকে কাজে লাগিয়ে শত্রু’র শত্রুকে দিয়ে নিজের শত্রুকে শায়েস্তা করে। এ দৃষ্টিতে  কুলাচার্য জ্ঞানানশ্রীর বর্ণনাকে অগ্রাহ্য করা যায় না।এই বিষয়ে বিস্তারিত জানা যায় ডক্টর Mu’min Chowdhury এর লেখা The Rise and Fall of Buddhism in South Asia,London: London Institute of South Asia, 2008 বই থেকে।

কোথা থেকে শুরু এই প্রপাগান্ডার ?     

প্রফেসর Johan Elverskog তাঁর Buddhism and Islam on the Silk Road বইয়ে ভারতে বৌদ্ধ মুসলিম সম্পর্ক নিয়ে প্রচলিত ধারাকে চ্যালেঞ্জ করেছেন। বৌদ্ধদের উপর মুসলিম সেনাপতি ও শাসকগন অত্যাচার করেছেন এই ধারণাকে তিনি নাকচ করে দেন। তিনি বলেন; “He argues that the stereotypical image of Muslims as hostile towards Buddhists has been constructed in the West, and “reaffirmed” with the Taliban’s destruction of the giant Buddha statues in Bamiyan in 2001” (pp. 1–4). অর্থাৎ, বৌদ্ধদের সাথে মুসলমানদের শত্রুতার প্রচলিত ধারণা পশ্চিমে তৈরি হয় এবং এটা আরো প্রতিষ্ঠিত হয় তালেবান কর্তৃক ২০০১ সালে (আফগানিস্তানের বামিয়ানে) বিশাল বৌদ্ধমুর্তি ধ্বংসের মাধ্যমে।

কিন্তু পশ্চিম কোথা থেকে পেল এই ধারণা? তারা সাধারণত রেফারেন্স ছাড়া কিছু বলেনা তবে রেফারেন্স তারাও টুইস্ট করে,যেমনটা করেছে ওরিয়েন্টালিস্ট (প্রাচ্যবিদ)স্কলাররা কুরআন, হাদীস ও সিরাত অধ্যয়নের ক্ষেত্রে।

ভারতের ইতিহাসে মুসলিমদের ভিলেন হিসেবে চিত্রিত করার প্রক্রিয়া শুরু হয় উপনিবেশ আমলে ওরিয়েন্টালিস্ট স্কলারদের হাতে । বৃটিশ স্যার জন হুবার্ট মার্শাল (১৮৭৬-১৯৫৮)ছিলেন ভারতীয় আর্কিওলজিকাল সার্ভের প্রধান।১৯০২-৩১ সময়ে তাঁর নেতৃত্বে ভারতীয় মহাদেশে বেশ কিছু প্রত্নতাত্ত্বিক অনুসন্ধান হয়। ডক্টর ডি বি স্পুনার (D.B. Spooner) নালন্দা সংশ্লিষ্ট বিহার, টিলা,কলেজ ইত্যাদি খোঁড়াখুঁড়ি করেন। মিনহাজের বর্ণনা অনুসারে বখতিয়ার খলজি কর্তৃক ১১৯৯-১২০০ সালে উদন্তিপুর বিহার আক্রমন ও হত্যাকাণ্ডের ঘটনা তখন প্রায় সবার জানা।তাঁদের ঐ প্রত্নতাত্ত্বিক অনুসন্ধান নতুন কিছু আর খুঁজে না পেয়ে এবং সেখানে আগুনে পোড়ার চিহ্ন দেখে কোন ধরণের কার্বন টেস্ট ছাড়াই উপসংহারে পৌঁছে যান যে নান্দা ধ্বংসের ঘটনা তাহলে মুসলিম শাসক বখতিয়ার খলজির হাতেই ঘটেছে ১১৯৩ সালে।

তাঁদের ধারণা যেহেতু নালন্দা উদন্তপুর থেকে বেশী দূরে নয়,সেহেতু এটা মুসলিম অভিযানের সময়ই ঘটে থাকবে।অথচ তাঁদের কাছে তিব্বতি স্কলার-মঙক ধর্মস্বামী’র বর্ণনা জানা ছিলনা কেননা সেটা আরো অনেক পরে আলোচনায় আসে। একই উপসংহারে পৌঁছেন মার্শাল সারনাথে,  অশোকের ধর্মরাজিকা টিলা এবং ধ্বংস হওয়া দেয়াল এর ক্ষেত্রেও। এই উপসংহারের ভিত্তিতে ভারতে কাজ করা একজন ইংরেজ আমলা ভিনসেন স্মিথ তাঁর Oxford History of India  গ্রন্থে ১৯২০ সালে লিখেন; মুসলিম আক্রমণের কারণেই বৌদ্ধ ধর্ম একটি সংগঠিত ধর্ম হিসেবে ভারতীয় উপমহাদেশে অস্তিত্বের সংকটে পরে [C.Allen, 2001:284-86 cited in A. Mu’min Chowdhury, The Rise and Fall of Buddhism in South Asia, London: London Institute of South Asia, 2008: 274 ]।  এই ন্যারেশানই ভারতের অফিসিয়াল ন্যারেশান এবং সেটা নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফলকে উল্লেখ করা আছে এখনো।

এইতো গেল, নালন্দা সংশ্লিষ্ট বিহার ও উত্তর ভারতের ঘটনা।সমগ্র ভারতে মুসলিম শাসনের কি অবস্থা? বিশেষ করে, বলা হয়ে থাকে মুসলিম সেনা ও শাসকরা হিন্দুদের মন্দির ভেঙ্গেছেন, জোড় করে ধর্মান্তরিত করেছেন? এই বিষয়ে আমি জাতে ব্রাহ্মণ এবং রাজনৈতিকভাবে কমিউনিস্ট ডাক্তার পিনাকি ভট্টাচার্যের সাম্প্রতিক একটি লেখা থেকে কোট করছি। তিনি লেখেন;

ভারতের মন্দির ধ্বংসের বিষয়ে প্রচলিত মিথ হচ্ছে মুসলমান শাসকেরা এই মন্দিরসমুহ ভেঙ্গেছেন। বিখ্যাত ইতিহাসবিদ রিচার্ড এম ইটন জানাচ্ছেন; ১২ শতক থেকে ১৮ শতক পর্যন্ত, পুরো মুসলিম শাসনে দক্ষিন এশিয়ায় মুসলমান শাসকদের হাতে মোট ৮০ টি মন্দির ভাঙা হয়েছিল। রিচার্ড ইটন কেন ভাঙা হয়েছিল সেটার কারণ ও অনুসন্ধান করেছেন। তিনি জানাচ্ছেন, যেই সমস্ত রাজা শাসকের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করেছিল এবং সেই বিদ্রোহে যদি কোন মন্দির বিদ্রোহী রাজার সাথে পলিটিক্যালি যুক্ত থাকতো সেই মন্দির মুসলমান শাসকেরা ধ্বংস করেছে। কারণটা পুরোপুরি রাজনৈতিক; ধর্মীয় বিদ্বেষ নয়। [Eaton, Richard M. The Rise of Islam and the Bengal Frontier, 1204-1760. Berkeley: University of California Press, 1993]

পিনাকি ভট্টাচার্য কয়েকটি গবেষণার রেফারেন্স দিয়ে আরো বলেন;

সম্রাট আওরঙ্গজেব সম্পর্কেও মন্দির ধংসের অপবাদ শোনা যায়। এখানেও বিস্ময়কর ভাবে কারণটা রাজনৈতিক। আওরঙ্গজেব রাজপুতদের মন্দির ভেঙ্গেছিলেন, যেই রাজপুত মোঘলদের অনুগত ছিল কিন্তু আওরঙ্গজেবের আনুগত্য মানতে অস্বীকার করে বিদ্রোহ করে। সেই বিদ্রোহ দমনের পরে মন্দির গুলো ভাঙা হয়।

সবচেয়ে কৌতূহল উদ্দীপক তথ্য দিচ্ছেন ইটন বাংলা সম্পর্কে। তিনি জানাচ্ছেন বাঙলায় সম্রাট আওরঙ্গজেব যে কোন মোঘল শাসকদের চেয়ে বেশী মন্দির নির্মাণ করে দিয়েছিলেন। আওরঙ্গজেবের অনেক দোষ থাকতে পারে, কিন্তু হিন্দু বিদ্বেষের দোষটা আরোপিত যেটা তাঁর প্রাপ্য নয়। (PINAKI BHATTACHARYA, হিন্দু রাজাদের হাতে ভারতের মন্দির ধ্বংসের অজানা ইতিহাস, ২৪ এপ্রিল ২০১৬,ফেইসবুক নোট, https://goo.gl/mptdiF )।

আর জোর করে ধর্মান্তরকরন প্রশ্নে,‘ইহুদি ব্রাহ্মণ’ বলে নিজেকে পরিচয় দেয়া মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কলাম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে দক্ষিণ এশিয়া চর্চার অধ্যাপক শেলডন পোলকের একটি মন্তব্যই যথেষ্ঠ এই তত্ত্বের মিথ্যা প্রমাণে। আনন্দবাজার পত্রিকার সাথে এক সাক্ষাতকারে তাকে প্রশ্ন করা হয় “অনেকে বলেন, ইসলামি আক্রমণের পর সংস্কৃতের পতন হল, শাসকের দাপটে সবাই উর্দু, ফার্সি শিখতে ছুটল”? এর জবাবে তিনি বলেন;

“বাজে কথা। তোমাদের বাংলার নবদ্বীপ বা মিথিলা সংস্কৃত ন্যায়চর্চার কেন্দ্র হয়েছিল সুলতানি আমলে। দারাশিকো বেদান্ত পড়ছেন বারাণসীর পণ্ডিতদের কাছে। মুসলমান শাসকরা এ দেশে প্রায় বারোশো বছর রাজত্ব করেছিলেন। ওঁরা জোর করে ধর্মান্তর করালে এ দেশে এক জনও হিন্দু থাকত না। ওঁদের উত্‌সাহ না থাকলে সংস্কৃতও টিকে থাকত না। ধর্মের সঙ্গে ভাষার উত্থানপতন গুলিয়ে তাই লাভ নেই”(আনন্দবাজার পত্রিকা, মুসলমান শাসকরা জোর করে ধর্মান্তর করালে এ দেশে এক জনও হিন্দু থাকত না”, ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৫)

পরিশেষে, একথা আশাকরি পরিষ্কার হয়েছে যে, বখতিয়ার খলজি বিহার এবং পরবর্তিতে বাংলায় অভিযান চালিয়েছেন সত্য এবং সেটা তিনি করেছেন বৌদ্ধদের আহবানে। সেটা করতে গিয়ে তাঁর বাহিনীর হাতে কিছু মানুষও মারা যায়। কিন্তু তিনি ঐতিহাসিক নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয় ধ্বংসের সাথে কোনভাবেই জড়িত ছিলেন না। বরং তাঁর সময় ও পরবর্তী মুসলিম শাসনে অনেক বৌদ্ধ বিহারে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জ্ঞান চর্চা চলেছে। নালন্দা ধ্বংস হয় তীরহুতের রাজা অর্জুনের সময়ে একদল ব্রাহ্মণ দুর্বৃত্ত্বের হাতে।তবে সেটা ১৩০০ সাল পর্যন্ত চলেছে বলে ঐতিহাসিক তথ্য প্রমাণ নিশ্চিত করে।

প্রাসঙ্গিক পোস্টঃ

বাংলায় বৌদ্ধধর্মের হারিয়ে যাওয়া এবং বাঙালী মুসলমানের শিক্ষা

ভারতবর্ষে বৌদ্ধ ধর্মের অবলুপ্তির কারণ

ব্রাক্ষণ্য অত্যাচারের এক অন্ধকার অধ্যায়

যেভাবে বৌদ্ধ বাংলা রুপান্তরিত হল মুসলিম বাংলায়

Buddhism and Islam on the Silk Road বইয়ের রিভিউ

Facebook Comments

11 thoughts on “নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়, ইতিহাসের রাজনীতি ও বখতিয়ার খলজির বিহার অভিযান