বাংলাদেশের সংখ্যালঘু হিন্দু জনসংখ্যা কমে যাওয়ার আসল কারণ

গত বাংলাদেশের সরকারী চাকুরীতে সংখ্যালঘুদের অবস্থান পর্বে আমরা দেখতে পেয়েছি সরকারী-বেসরকারী চাকুরীতে বাংলাদেশে বসবাসকারী হিন্দু জনগোষ্ঠীর উপস্থিতি এবং সেটা আপাত সন্তোষজনক।দুনিয়ার অন্যান্য অনেক দেশের তুলনায় বাংলাদেশে বসবাসকারী হিন্দুরা চাকুরীতে তাঁদের জনসংখ্যার আনুপাতিক হারে বেশ ভাল অবস্থানে আছেন।বাংলাদেশে সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠী মাত্র ১০% হলেও সরকারী চাকুরীতে তাঁদের উপস্থিতি ২৯%,যেটা সকল বাংলাদেশীর গর্ব করার বিষয়,এজন্য যে বাংলাদেশে অন্তত ধর্মীয় পরিচয়ের কারণে কাউকে চাকুরীতে বঞ্চিত করা হয়না। এই পর্বে থাকছে সংখ্যালঘুর, বিশেষ করে হিন্দু জনগোষ্ঠীর জনসংখ্যার প্রবণতা নিয়ে আলোচনা।

২০১২ সালের ২২ সেপ্টেম্বরে দৈনিক প্রথম আলো ‘১০ বছরে ৯ লাখ হিন্দু কমেছে’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে।যেখানে দেখানো হয় কিভাবে ১৯৫১ সাল থেকে তুলনামূলকভাবে হিন্দু জনগোষ্ঠী ২২% থেকে কমে ২০১১ সালে ৮.৫% এ এসে ঠেকেছে (দেখুনঃচিত্র ১) ।

bd population P Alo 2012
চিত্র-১ঃ ১৯৫১ সাল থেকে বাংলাদেশের ধর্মভিত্তিক জনসংখ্যার তুলনামূলক চিত্র (উৎসঃ শিশির মোড়ল, ১০ বছরে ৯ লাখ হিন্দু কমেছে, প্রথম আলো, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১২)

এই প্রতিবেদন রাতারাতি আলোচনার বিষয়ে পরিণত হয়।বিভিন্ন মিডিয়া, ব্লগ, ওয়েবসাইটে এই নিয়ে তুমুল আলোচনা শুরু হয়।মন্তব্য প্রতিবেদন আসতে থাকে বিভিন্ন পত্রিকায়।ব্যাপারটা খুব ভয়ানক তাইনা? ১০ বছরে(২০০১ থেকে ২০১১ সালের মধ্য) ৯ লাখ হিন্দু লাপাত্তা(?)।এক ভীতিকর চিত্র ফুটে উঠে দেশে বিদেশে।চলে প্রপাগান্ডাও।সেই প্রপাগান্ডার মূল বয়ান হচ্ছে, বাংলাদেশের সংখ্যালঘু হিন্দুরা নিরাপদ নয়, তাঁদের অস্তিত্ব আজ বিপন্ন এবং সেজন্য সংখ্যাগুরু মুসলিমরাই দায়ী।সংখ্যাগুরু মুসলিমদের অত্যাচার, নির্যাতনের ফলেই এই বিশাল সংখ্যক হিন্দু ‘হারিয়ে যায়’! আসলেই কি তাই?

ব্লগ সাইট Alal-o-Dulal এর এডিটরিয়াল টিম এই বিষয়ে বিভিন্ন সময়ের ডাটা নিয়ে স্টাডি করে নিন্মোক্ত উপসংহারে পৌঁছে (দেখুন; চিত্র ২)।তাঁদের হিসেব মতে ‘হারিয়ে যায় হিন্দু’ সংখ্যা আসলে ৫,৪৭,৯৫৩ (পাঁচ লাখ সাতচল্লিশ হাজার নয়শত তিপ্পান্ন)।

Alal o Dulal study on hindu population
চিত্র-২ঃ ২০০১ এবং ২০১১ সালের হিন্দু জনগোষ্ঠীর তুলনামূলক চিত্র [সোর্সঃ Alal-o-Dulal,Is this the Bangladesh we wanted? Analyzing the Hindu Population Gap (2001-2011), 12 April, 2014, Available at https://alalodulal.org/2014/04/12/hindu-population-gap/ ]

আলাল ও দুলাল সাইটের কাছেও প্রায় সাড়ে পাঁচ লাখ হিন্দু জনগোষ্ঠীর হারিয়ে যাওয়ার কোন সঠিক উত্তর পাওয়া যাচ্ছেনা। তবে তারাও যে ফেলাসি অতিক্রম করতে পারেনি সেটা তাঁদের ক্যালকুলেশন ও উপসংহার থেকে স্পষ্ট। যে বিষয়কে বেইস ধরে এখানে পর্যালোচনা চলেছে সেটা হচ্ছে এক ধরণের ‘ভবিষ্যদ্বাণী’ ধরনের।অর্থাৎ,আগের জনসংখ্যা বৃদ্ধির প্রবণতাকে ধরে নিয়ে একটা আপাত প্রত্যাশিত (Predicted) ধারণার ভিত্তিতে পর্যালোচনা চালিয়েছে প্রথম আলো এবং আলাল ও দুলাল টিম। ধারণা করা হয়েছিল ১.৩৭% হারে হিন্দু জনসংখ্যা বাড়বে এবং সেই অনুপাতে একটা কল্পিত জনসংখ্যাকে ধরে নিয়ে বলা হয়েছে ৯ লক্ষ (প্রথম আলো) বা ৫ লক্ষ (আলাল ও দুলাল সাইট) হারিয়ে গেছে!

জনসংখ্যার হিসেবে এ ধরনের ‘ভবিষ্যদ্বাণী’ বা ধারণা একটি প্রচলিত ম্যাথডলজি।কিন্তু যেহেতু বিষয়টা খুবই স্পর্শকাতর গবেষকদের উচিত ছিল অতি প্রচলিত এই ম্যাথডলজিকে অনেকটা ‘প্রতিষ্ঠিত সত্য’মনে না করে একটু ক্রিটিকাল হওয়া। যে মাপ যন্ত্র দিয়ে মাপা হবে সেটিই যদি ফুটা হয় তাহলে ওজন কিভাবে সঠিক হবে?

মুক্তমনা ব্লগে আমেরিকার ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের জ্যোতির্পদার্থবিদ্যার গবেষক ড. দীপেন ভট্টাচার্যের আর্টিকেল থেকে আমরা হিন্দু জনগোষ্ঠীর বৃদ্ধির সঠিক চিত্রটি দেখতে পাই।

টেবিল-১ঃ ১৯৫১ সাল থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত হিন্দু জনগোষ্ঠী বৃদ্ধির শতকরা হার (উৎসঃ দীপেন ভট্টাচার্য, বাংলাদেশে হিন্দু সম্প্রদায়ের সংখ্যাগত ভবিষ্যৎ, মুক্তমনা ব্লগ, জানুয়ারী ১২, ২০১৪, https://blog.mukto-mona.com/2014/01/12/39192/)

উপরোক্ত চিত্র থেকে একটা বিষয় পরিষ্কার যে, হিন্দু জনগোষ্ঠীর জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার সমগ্র জনসংখ্যা তুলনায় অনেক অনেক কম। সমগ্র জনসংখ্যার বৃদ্ধির হার যেখানে গড়ে ৪.৪% সেখানে হিন্দু বৃদ্ধির হার মাত্র ০.৭%! ১৯৯১-২০০১ সাল থেকেই হিন্দু জনগোষ্ঠী বৃদ্ধির হার আগের দশ বছরের তুলনায় নেমে এসেছে ০.১২%। অথচ তখন সামগ্রিক জনসংখ্যার বৃদ্ধির হার ছিল ২.২৫%।তাহলে ২০১১ সালে এসে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান বুরো কিভাবে ১.৩৭% ধরে নিয়ে হিন্দু জনগোষ্ঠীর বৃদ্ধির ধারনা (prediction)করতে পারে? এটাকি ম্যাথডলজিকাল ভ্রান্তি নয়??

সাধারন পাঠকের সুবিধার জন্য সহজ করে বলতে হয়, স্বাভাবিকভাবেই মুসলিম ও হিন্দু জনগোষ্ঠীর বৃদ্ধির হারের মধ্যে রয়েছে বেশ পার্থক্য।এই প্রবণতার কারন আমরা পরে বিস্তারিত আলাপ করব।কিন্তু যেটা এখানে বলে নিতে হয়,

মুসলিম জনসংখ্যা স্বাভাবিক হারে বাড়া মানেই আনুপাতিক হারে হিন্দু জনসংখ্যা কমে যাওয়া,কারন হিন্দু জনগোষ্ঠীর মাঝে আনুপাতিক হারে সন্তান জন্ম নিচ্ছে কম।এর জন্য দায়ী কি সংখ্যাগুরু মুসলিম জনগোষ্ঠী?

হিন্দু জনগোষ্ঠী কমার ঐতিহাসিক প্রবণতা 

Partition of Bengal geo study short_Page_1

১৯৪৭ সালে ভারত ভাগের আগে কলকাতা ইউনিভার্সিটির ভু-তত্ত্ব বিদ্যা ডিপার্টমেন্টের প্রধান ডক্টর এস পি চ্যাটার্জির ‘The Partition of Bengal-A Geographical Study’ নিবন্ধে তৎকালীন হিন্দু-মুসলিম ও অন্যান্য ধর্মের জনসংখ্যার একটি চিত্র পাওয়া যায়।

সেখান থেকে জরুরী কিছু বিষয় এখানে তুলে ধরছি।শুরুতে বলে নিতে হয় যে, এই নিবন্ধে লেখক খুব নিখুঁতভাগে বাংলা ভাগের চিত্র অঙ্কন করেছেন এবং দেখাতে চেয়েছেন কিভাবে ভাগ করলে হিন্দুপ্রধান পশ্চিমবঙ্গ বাংলা ভাগ থেকে সবচেয়ে লাভবান হবে।পশ্চিমবঙ্গের কাঁটাছেড়া মানচিত্রের দিকে তাকালে এই অসহায় চিত্র বুঝা যায়।

৪৭ এ ভারতের চিত্র যেখানে মুসলিম-হিন্দু সংখ্যার অনুপাত দেখা যাচ্ছে (বামে), পশ্চিমবঙ্গের মানচিত্র ৪৭ সালের দেশভাগের পর (ডানে)

শুরুতে ডক্টর চ্যাটার্জি ১৮৮১ সাল থেকে ১৯৪১ সাল পর্যন্ত অভিভক্ত বাংলায় হিন্দু-মুসলিম ও উপজাতি বা নৃতাত্ত্বিক ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীর একটি তুলনা মূলক চিত্র তুলে ধরেন (চিত্র ৩ এবং চিত্র ৪) ।

Partition of Bengal geo study short_Page_2 - Copy
চিত্র ৩ঃ ১৮৮১ সাল থেকে ১৯৪১ সালে হিন্দু-মুসলিম এবং উপজাতী জনসংখ্যার তুলনা (The Partition of Bengal-A Geographical Study,  1947)

 উপরোক্ত পরিসংখ্যান পর্যালোচনা করে তিনি বলেন; It is clear that the proportion of Hindu has been steadily decreasing, and on the other hand, that of Muslims continually increasing from one census year to the other (Page 2).If the difference goes on multiplying at the present rate, a time will come when the Bengali Hindus will be in a hopeless minority in their homeland).  In the year 2041 Hindus will form less than one-sixth of the total population of Bengal (page 3). The above figures may be interpreted in such a way so as to come to the conclusion that in Bengal the social and economic structure of Muslims is somewhat different from that of Hindus. Hence, on this ground alone Bengali Hindus may claim a separate Homeland for themselves (page 5).  ( Dr. S. P. Chatterjee, The Partition of Bengal-A Geographical Study, Calcutta Geographical Society, Publication No.8, 1947)

Partition of Bengal geo study
চিত্র ৪ঃ হিন্দু মুসলিম জনসংখ্যার পার্থক্য ১৮৮১-১৯৪১ (প্রাগুক্ত)

অর্থাৎ, এটি পরিষ্কার যে হিন্দুর সংখ্যা আনুপাতিক হারে কমছে এবং অন্যদিকে আদমশুমারির পর আদমশুমারি মুসলমানের সংখ্যা বাড়ছে।এই পার্থক্যের প্রবণতা যদি বর্তমান হারে চলতে থাকে,তাহলে এমন সময় আসবে যখন বাঙ্গালী হিন্দুরা হতাশাজনকভাবে নিজের দেশেই সংখ্যালঘু হয়ে যাবে। ২০৪১ সালে বাংলায় হিন্দু জনসংখ্যা হবে মোট জনসংখ্যার ৬ ভাগের ১ ভাগেরও কম।উপরোক্ত চিত্র এমন ভাবে ব্যাখ্যা করা যায় যেখান থেকে এই উপসংহারে পৌঁছা যায় যে বাংলায় আর্থ-সামাজিক গঠনের দিক দিয়ে মুসলিদের অবস্থা হিন্দুদের চেয়ে ভিন্ন।অতএব, কেবল এই বাস্তবতায়ই হিন্দুরা নিজেদের জন্য একটি আলাদা ভুখন্ডের দাবী করতে পারে। 

উপরোক্ত গবেষণায় আরো দেখা যায় সেসময় পুর্ববঙ্গে নিম্নবর্ণের হিন্দু(দলিত/হারিজন/অচ্যুত)ছিল প্রায় ৩১ লাখ (চিত্র ৫) ।পুরো হিন্দু কমিউনিটিকে এক ইউনিট ধরে তখনকার মুসলিম বাংলায়(পুর্ব বাংলায়>পূর্ব পাকিস্তান> বাংলাদেশ)হিন্দু জনগোষ্ঠীর সংখ্যা ছিল ৭৯,৮৮,৪৫০ জন (প্রাগুক্ত) ।

চিত্রঃ দলিত শ্রেণীর হিন্দু (দুই বাংলায়)
চিত্র-৫ঃ দলিত শ্রেণীর হিন্দু (দুই বাংলায়)[প্রাগুক্ত] 

এখানে বলে নেয়া দরকার যে, ডক্টর চ্যাটার্জীর গবেষণা ১০০% বাস্তবায়ন হয়েছে এমন নয়।ফাইনাল পার্টিশনের সময় দেখা গেল মুসলিম বাংলার কয়েকটি জেলা পড়েছে হিন্দু বাংলায়,আর হিন্দু বাংলার কয়েকটি মুসলিম বাংলায় ।ফলে, জনসংখ্যার বন্টনে কিঞ্চিত পরিবর্তন হওয়া স্বাভাবিক।সেই হিসেবে আমি দলিত হিন্দুর সংখ্যা ২৭ লক্ষের জায়গায় ৩১ লাখ উল্লেখ করেছি।

উপরোক্ত আলোচনা থেকে একটি বিষয় পরিষ্কার যে, হিন্দু জনগোষ্ঠীর মধ্যে জনসংখ্যার নিম্নগতি ১৯৪৭ সালেরও বহু আগে থেকে শুরু হয়েছে এবং এর স্বাভাবিক ধারাবাহিকতা চালু রয়েছে।একই চিত্র আমরা দেখতে পাই পশ্চিম বাংলায়।

Population in west Bengal
টেবিল-২ঃ পশ্চিমবঙ্গে হিন্দু-মুসলিম জনসংখ্যার চিত্র ১৯৫১ থেকে ২০১১ (B.P. Syam Roy, Bengal’s topsy-turvy population growth, The Statesman, 28 September, 2015, http://www.thestatesman.com/news/opinion/bengal-s-topsy-turvy-population-growth/93152.html#6RPLGlm3rs71tB0y.99)

একই চিত্র আমরা দেখতে পাই পুরো ভারতজুড়ে।ভারতের আউটলোক ম্যাগাজিন ২০০৪ সালে এক রিপোর্টে উল্লেখ করে;

The first-ever census report on religion today showed a “high growth” of Muslims at 36 per cent in sharp contrast to the “decline” in the Hindu population to 20.3 per cent in the country. In terms of growth of different religious communities, Hindus showed a decline over the previous decade, their population growing by 20.3 per cent during 1991 and 2001 as compared to 25.1 per cent during 1981-91. On the other hand, the Muslim population grew by 1.5 per cent to 36 per cent during 1991-2001, compared to 34.5 per cent during 1981-91, according to “The First Report on Religion” here ( Outlook India, ‘Muslims grow at 36%, Hindus down to 20.3%’, 06 SEPTEMBER 2004, http://www.outlookindia.com/newswire/story/muslims-grow-at-36-hindus-down-to-203/247555 ). সংক্ষেপে,ভারতে মুসলিম জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার অনেক বেশি,যেখানে হিন্দু জনসংখ্যা ক্রমানয়ে কমছে।

উপরোক্ত চিত্র দেখলে পরিষ্কার বুঝা যায় যে, সাড়া ভারত এবং পশ্চিমবঙ্গেও হিন্দু জনগোষ্ঠীর তুলনায় মুসলিম জনসংখ্যার হার বেশী এবং সেটা ধারাবাহিকভাবে ঘটে চলেছে।এখন নিশ্চয়ই কোন সুস্থ মস্তিষ্কের মানুষ পশ্চিমবঙ্গের হিন্দু জনসংখ্যা কমার জন্য সেখানকার সংখ্যালঘু মুসলমানদের দায়ী করবেনা, করবে কি? তাহলে একই প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশের ক্ষেত্রে সংখ্যাগুরু জনগোষ্ঠীকে মনস্তাত্ত্বিকভাবে ভিকটিম বানানো হচ্ছে কেন?

সোশ্যাল মিডিয়া বিশেষ করে ফেইসবুক কেন্দ্রিক হিন্দু জনগোষ্ঠীর সংখ্যা কমার জন্য একমাত্র মুসলিমদের বিরুদ্ধে যে অপপ্রচার ও ঘৃণা ছড়ানো হয়, সকল প্রকার সাম্প্রদায়িকতা থেকে মুক্ত একজন সুস্থ মনের লিবারেল মুসলমানও এক ধরণের হীনমন্যতায় ভোগে।আর কারো কথা জানিনা,আমি নিজে এর ভিক্টিম।কিন্তু এই বিষয়ে দালিলিক গবেষণায় দেখা যাচ্ছে পরিস্থিতি সম্পুর্ন ভিন্ন।

জনসংখ্যা বৃদ্ধি-কমার কারন

এই পর্যায়ে আমরা দেখতে চাই জনসংখ্যা বৃদ্ধি বা কমছে কেন।আলোচনার সুবিধার্থে হিন্দু-মুসলিম দুই কমিউনিটিকে পাশাপাশি রাখতে পারি আমরা। ১৯৮০ সালের পর থেকে সামগ্রিকভাবে বাংলাদেশে জনসংখ্যা কমার প্রবণতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে।পরিবার-পরিকল্পনা পদ্ধতির ব্যাপক প্রচার ও প্রচলন যে এক্ষেত্রে সফল সে কথা নিশ্চিত বলা যায়।

‘ছেলে হোক,মেয়ে হোক দুটি সন্তান ই যথেষ্ট’ এর যুগ পেরুনোর পর ‘দুটি সন্তানের বেশী নয়, একটি হলে ভাল হয়’ এর যুগে এসে গড় প্রজনন হার ২০১৬ সালে এসে দাঁড়িয়েছে ২.২। অর্থাৎ, একটি পরিবারে এখন গড়ে ২ টি করে সন্তান রয়েছে। দুঃখজনক হল হিন্দু পরিবারে স্বাভাবিক এই প্রবণতাও অনুপস্থিত।ফলে তাঁদের জনসংখ্যার স্বাভাবিক বৃদ্ধিই হচ্ছেনা।প্রথম আলোর রিপোর্টে নিন্মোক্ত কারনগুলো উল্লেখ হয়েছে হিন্দু জনগোষ্ঠী কমে যাওয়ার;

  • হিন্দু জনগোষ্ঠীর মধ্যে মোট প্রজনন হার তুলনামূলকভাবে কম
  • দেশত্যাগ
  • শত্রু সম্পত্তি আইন (অর্পিত সম্পত্তি)
  • নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নানা ধরনের চাপ ও নির্যাতন
  • সাম্প্রদায়িক উত্তেজনাঃ ভারতে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা দেখা দিলে তার আঁচ লাগে এ দেশের হিন্দুদের গায়ে।
  • ভারতে রেখে  সন্তানদের  স্কুলে বা কলেজে পড়াচ্ছেন অনেক পরিবার
  • অনেক বাবা-মা অল্প বয়সে মেয়েকে বিয়ে দিচ্ছেন ভারতে

( উৎসঃ শিশির মোড়ল, ১০ বছরে ৯ লাখ হিন্দু কমেছে, প্রথম আলো, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১২)

উপরোক্ত কারনগুলোর মধ্যে আমরা ঐতিহাসিক ও বর্তমান চিত্রের মাধ্যমে দেখতে পেয়েছি শুধুমাত্র প্রজনন হার ব্যাপকভাবে কমে যাওয়ার কারণেই হিন্দু জনগোষ্ঠীর শতকরা হার কমে যাচ্ছে।কেবল মাত্র এই একটি কারণে ভবিষ্যৎ হিন্দু জনসংখ্যার একটি ধারণা পেশ করেছেন মুক্তমনা ড. দীপেন ভট্টাচার্য।

future prediction of Hindu population in bd
টেবিল -৩ঃ  সম্ভাব্য ভবিষ্যৎ হিন্দু জনসংখ্যা (উৎসঃ দীপেন ভট্টাচার্য, বাংলাদেশে হিন্দু সম্প্রদায়ের সংখ্যাগত ভবিষ্যৎ, মুক্তমনা ব্লগ, জানুয়ারী ১২, ২০১৪,)

অর্থাৎ, প্রথম আলো উল্লেখিত কারণগুলোর প্রথমটি ব্যাতীত বাকী সবগুলো ঠেকানো গেলেও আজ থেকে ৪৫ বছর পর বাংলাদেশে শতকরা হিন্দু জনসংখ্যা গিয়ে ঠেকতে পারে ১.৫% এ! তাঁর মানে এই নয় যে, প্রথমআলো উল্লেখিত কারনগুলো বাংলাদেশে অনুপস্থিত।

শেষ করার আগে, মুসলিম জনগোষ্ঠীর সংখ্যা বৃদ্ধি হওয়ার কারনও একটু আলোচনা করা দরকার। ভারতের আউটলোক ম্যাগাজিন উপরেল্লেখিত রিপোর্টে জানায় যে, ভারতীয় মুসলমানদের মধ্যে শিক্ষার হার কম ও মহিলাদের কাজে অংশগ্রহন করার সুযোগ কম বিধায় মুসলিম জনসংখ্যা বাড়ছে।আরেকটা কারন তাঁরা উল্লেখ করেনি সেটা হচ্ছে ভারতীয় মুসলমানেরা চাকুরীতে সবচেয়ে বঞ্চিত জনগোষ্ঠী এবং দরিদ্রতা তাঁদের নিয়তি। একই ধরণের ব্যক্তব্য আমরা কমবেশী বাংলাদেশেও দেখি।কম শিক্ষিত,দরিদ্র ও ধর্মপরায়ণ জনগোষ্ঠীর মধ্যে সন্তান নেয়ার প্রবণতা বেশী।সামগ্রিকভাবে পরিবার ছোট হয়ে আসলেও শহর-গ্রামের মধ্যে গ্রামের মানুষ অধিক সন্তান নিয়ে থাকেন।

উপরোক্ত বিবেচনায় যদি হিন্দু জনগোষ্ঠীর দিকে দৃষ্টিপাত করি তাহলে তাহলে দেখা যাবে তাঁদের মধ্যে উচ্চ বর্ণের হিন্দুদের মধ্যে শিক্ষিতের হার বেশী এবং চাকুরীতে উপস্থিতিও রয়েছে বেশী (প্রায় ২৯%)।ফলে, আধুনিক শহুরে জীবনের সামগ্রিক চিত্র হচ্ছে পরিবার ছোট্ট হয়ে আসা।সেই প্রবণতায় উচ্চ শিক্ষিত সমাজের এলিট শ্রেণীর মানুষের মাঝে সন্তান নেয়ার মানসিকতা সাধারন গ্রামের মানুষের তুলনায় বেশ কম।

শিক্ষা ও সামাজিক অবস্থান, দরিদ্রতার বিচারে দলিত শ্রেণীর হিন্দুদের অবস্থা গ্রামের দরিদ্র চাষা ভুষা মুসলমানের চেয়ে কোন অংশে ভাল নয়।শ্রেণীর বিচারে তাঁদের অবস্থান সমাজের সবচেয়ে নিচের শ্রেণীতে।ফলে তাঁদের মধ্যেও দরিদ্র মুসলমানের মত জনসংখ্যা বৃদ্ধির একটা স্বাভাবিক প্রবণতা রয়েছে। ১৯৪৭ সালে যেখানে দলিত শ্রেণীর জনসংখ্যা ছিল প্রায় ৩১ লাখ,সেখানে ২০১৪ সালে এসে তাঁদের সংখ্যা বেঁড়ে দাঁড়িয়েছে ৬৫ লাখে (Syed Tashfin Chowdhury, Dhaka Dalits push for anti-discrimination law, Aljazeera, 18 Jan 2014)। অর্থাৎ, দলিত জনগোষ্ঠীর বৃদ্ধি দ্বিগুণের চেয়েও বেশী।

উপসংহার

১৯৪৭ সালের হিসেবে পুর্ববঙ্গে উচ্চবর্ণের হিন্দুর সংখ্যা ছিল প্রায় ৫০ লাখ।২০১১ সালে সেই সংখ্যা বেঁড়ে দাঁড়িয়েছে মাত্র ৫৫ লাখে। ৪৭ সালের দেশ ভাগের পর পুর্ববঙ্গ থেকে পশ্চিমবঙ্গে চলে যাওয়া হিন্দুদের মধ্যে অভিজাত শ্রেণীর হিন্দুদের সংখ্যাই বেশী ছিল।তথাপি, স্বাধীনতার পর স্বাভাবিক সময়ে হিন্দু জনগোষ্ঠীর প্রজনন হার কমে যাওয়ায় জনসংখ্যার শতকরা অনুপাতে যে আপাত ঘাটতি দেখা যাচ্ছে সেটা দৃশ্যত উচ্চ বর্ণের হিন্দুদের মধ্যেই বিদ্যমান।এ থেকে এমন উপসংহারে আসা কি ভুল হবে যে, শহুরে, উচ্চ শিক্ষিত হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে এলিট লাইফ স্টাইলের কারণেই প্রজনন হার কম যা তাঁদের সামগ্রিক জনসংখ্যার নিম্নগতির জন্য প্রধানত দায়ী?

প্রাসঙ্গিক পোস্টঃ

বাংলাদেশের হিন্দুদের সাম্প্রদায়ীকতামুনশি বিশ্বজিৎ

সংখ্যালঘুদের উদ্বেগ ও একরৈখিক চিন্তাভাবনামুনতাসির মামুন

বাংলাদেশের “হিন্দু মানসের” বিবর্তনপিনাকি ভট্টাচার্য

সংখ্যালঘুর কষ্ট ও নালিশের মনস্তত্ব

বাংলাদেশের সরকারী চাকুরীতে সংখ্যালঘুদের অবস্থান

স্বাধীন ভারতে কেমন আছে সংখ্যালঘু মুসলিমরা

কেমন আছে ভারতে চলে যাওয়া বাংলাদেশের হিন্দুরা?

Facebook Comments